মন্দায় অসমতার অনর্থ : দুটি

@সমতার-ইস্তাহার-টিম, ১০ আগস্ট, সকাল এগারোটা দশ, এক মিনিটের পাঠ্য

১ নম্বর #অসমতা

গতকাল কর্পোরেটদের একটা টিম গিয়ে দেখা করেছে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন-এর সঙ্গে। তাদের একগুচ্ছ দাবি। জিএসটি ২৮\% স্ল্যাবে এখনও তিরিশের বেশি পণ্য রয়েছে, যেমন সিমেন্ট, মোটরগাড়ি ও তার পার্টস ইত্যাদি। সেগুলোতে ট্যাক্স কমাও। কোম্পানি আইনে কর্পোরেট সোস্যাল রেসপনসিবিলিটির নামে কী করা হচ্ছে তা নজরদারি করা যাবে না, গ্রেপ্তার টেপ্তার করা যাবে না। নিন্দুকে বলে, এই রেসপনসিবিলিটির নামে ব্র্যান্ডের প্রোমোশন করা হয়, আরো কত কী! যাক গে, কর্পোরেট বস্‌-রা আরো বলেছে, ব্যাঙ্কগুলির টাকা আছে, তাও লোন দিচ্ছে না ইন্ডাস্ট্রিকে। তা যেন করা হয়। ব্যাঙ্ক ছাড়া যে লগ্নিসংস্থাগুলি আছে, তাদের জন্য যেন স্পেশ্যাল প্যাকেজ দেওয়া হয়। ইত্যাদি। এবং এসব যেন তাড়াতাড়ি করা হয়। কারণ মন্দা এসে গেছে

https://www.business-standard.com/article/economy-policy/govt-gets-ready-for-reforms-to-fight-slowdown-fm-to-meet-fpis-mfs-today-119080900043_1.html

অর্থমন্ত্রী বলেছেন, হবে। তিনি সবার সঙ্গে দেখা করছেন। ছোটো শিল্পপতি, ব্যবসায়ী। রিয়েল এস্টেটের মালিকদের সঙ্গে দেখা করবেন রবিবার। ব্যাঙ্কারদের সঙ্গে দেখা করবেন সোমবার। তারপর ব্যবস্থা নেবেন। কর্পোরেট ট্যাক্স কমবে আশ্বাস দিয়েছেন। গত বাজেটের ধনী ব্যক্তিদের ওপর আয়করের বর্ধিত হারও প্রত্যাহার করার ইঙ্গিত দিয়েছেন।

তিনি কি শ্রমিকদের সঙ্গে দেখা করবেন? অন্ততঃ ট্রেড ইউনিয়নগুলির সঙ্গে? কর্পোরেটের কর্মীদের সঙ্গে?
সেরকম কোনো খবর নেই।

আপনাদের মধ্যে ক’জন শিল্পপতি? অন্ততঃ পাতি হলেও? ক’জন? আর ক’জন সেই সংস্থাগুলিতে কাজ করে? কর্পোরেট আর তার কর্মচারীদের স্বার্থ কি এক? এই তো সেদিন জেট এয়ারওয়েজের কর্মহীন লেবাররা দিল্লিতে ধর্নায় বসেছিল। কর্পোরেট কোম্পানির ঝাঁপ বন্ধ হলে তার ফ্যামিলির রোজগার থেমে যায় না। অন্য কোনোখানে সে ঠিক টাকাটা লগ্নি করে দেয় এবং তার লভ্যাংশ পেতে থাকে। হরিয়ানায় যদি কোম্পানি বন্ধ করে তাহলে হণ্ডুরাস বা হনুলুলুতে লগ্নি করে ফেলে। কিন্তু কর্পোরেটের কর্মচারীরা? গত কয়েকমাসে তিন লাখ অটোমোবাইল সেক্টরের শ্রমিক কর্মী লেবারের চাকরি গেছে। তারা কি হণ্ডুরাস বা হনুলুলুতে চাকরি পেয়েছে? তাদের প্রতিনিধিদের সঙ্গে কি নির্মলা সীতারামণ দেখা করেছে?

এই হল — ১ নম্বর #অসমতা

২ নম্বর #অসমতা

ওই বৈঠকে সরকারের এক বিশ্বস্ত কর্পোরেট গোয়েঙ্কা-রা বলেছে, ব্যাঙ্ক ব্যতীত অন্যান্য লগ্নি-কর্পোরেটগুলিকে এক লক্ষ কোটি টাকা অর্থসাহায্য করুক সরকার। আপনি ভাবছেন, এত টাকা কোত্থেকে আসবে? নীতি আয়োগ একটা তালিকা তৈরি করেছে বলে দুদিন আগে জানা গেছে। তাতে পাওয়ার গ্রিড থেকে শুরু করে বিএসএনএল — সমস্ত সরকারী সংস্থাগুলির অ্যাসেট (জমি, টাওয়ার, কেবল লাইন ইত্যাদি) বিক্রি করে তিন লক্ষ কোটি টাকা তুলবে বলে জানা গেছে।

এই হল যা যা বিক্রি করা হবে, তার নীতি আয়োগের প্রস্তাবিত তালিকা। https://economictimes.indiatimes.com/news/economy/finance/coming-soon-the-great-sarkari-sale/articleshow/70580274.cms


এক লক্ষ কোটি টাকা হয়ত পেল কর্পোরেট ফিনান্স গ্রুপগুলি।

এই অর্থনৈতিক মন্দায় আপনি, মানে কর্পোরেটে বা ইন্ডাস্ট্রি থেকে ছাঁটাই হওয়া বা হতে চলা বা আপনার ভাই বেরাদর শ্রমিক কর্মচারিরা কী পেলেন? তাদের তো রোজগার বন্ধ হয়ে গেছে। সরকার তাদের কিছু কি দেবে? ক্ষতিপূরণ হিসেবে? অন্ততঃ মাসে হাজার ছ’য়েক?

না, টাকা থাকতেও দেবে না।


এই হল — ২ নম্বর #অসমতা

এইভাবেই বড়োলোক আরো বড়োলোক হয়। গরীব আরো গরীব। বিশদ জানতে ও বুঝতে সমতার ইস্তাহার ও তার প্রশ্নোত্তর পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.