সর্বজনীন বিদ্যুৎ পরিষেবা: সাধারণ নির্বাচনে যে ইস্যুটা নিয়ে তেমন আলোচনা হচ্ছে না

প্রায় নব্বই শতাংশ নিম্নতর বিদ্যুৎ ব্যবহারকারী পরিবারের গড় সর্বোচ্চ ব্যবহার্য বিদ্যুৎ ইউনিট নিঃশুল্ক; এবং সেই বিদ্যুৎ হতে হবে গ্রিড-এর তিন ফেজ-এর বা উচ্চমানের বিদ্যুৎ, ও লোডশেডিং বিহীন — এটাই হল সর্বজনীন বিদ্যুৎ পরিষেবা।

সংযোজিত নাগরিকত্ব বিধি (CAR 2024) : কিছু বিপজ্জনক শর্ত

এমনিতেই CAA 2019 এবং CAR 2024 দুটিই খুবই বিতর্কিত দুটি আইন, কারণ এই দুটিতে ধর্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব প্রদানের কথা বলা হচ্ছে; যা আমাদের মতো ধর্মনিরপেক্ষ দেশে আদৌ সংবিধানসম্মত কি না তা ভাবার মতো। এখনও বিষয়টি সুপ্রিম কোর্টের বিচারাধীন।

কিন্তু সেসব নৈতিকতা এবং ধর্মনিরপেক্ষতার প্রেক্ষিত বাদ দিলেও, যাদের কথা ভেবে এই আইন ও বিধি বানানো, আদৌ তারা উপকৃত হবে কি না এই বিধির বল-এ; নাকি ভোটের মুখে তাদের শান্ত করার জন্য তাদের জন্য নতুন কোনও বিপদ হাজির করানো হল — সেই প্রশ্ন থেকেই যায়।

শাসক নির্বাচনের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি : একটি ফ্যাসিবাদী প্রবণতা

শাসক নির্বাচনের দায় আমি নিচ্ছি না। আমি তাকে ভোট দেব, আবার সে-ই আমার ভোটে জিতে এসে আমার ওপর ছড়ি ঘোরাবে, আমার গ্যাসের দাম বাড়াবে, আমার ব্যাঙ্ক থেকে টাকা তোলা আটকে দেবে, চাকরি পার্মানেন্ট করার দাবিতে অবস্থান করতে গেলে আমার ওপর পুলিশ লেলিয়ে দেবে, আমার পড়াশুনার খরচ বাড়িয়ে দেবে, আমার যাতায়াতের খরচ বাড়িয়ে দেবে। অথবা এমএলএ এমপি হয়ে যাবার পর যে পার্টি বেশি রেট দিচ্ছে তার দিকে চলে যাবে। তখন আমার অপরাধবোধ হবে। ভাবব, ঈসসসস! কী মরতে যে এদের/একে ভোট দিয়েছিলাম। তার চেয়ে যে/যারা হারবে নিশ্চিত, তাদের ভোট দেব। আপনি আপনার কাজ করুন। আমায় আমার কাজ করতে দিন। রাজনীতি দশজনকে নিয়ে। ভোট দেওয়া ব্যক্তিগত ব্যাপার।

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন ২০১৯ বিষয়ে কিছু প্রশ্নোত্তর

২০২০ জানুয়ারি মাসে প্রকাশিত একটি ই-প্যাম্পলেট (ক্যা-এনআরসি ফ্যাসিস্ট ষড়যন্ত্র রুখে দিন) থেকে নেওয়া। আপনি কি উদ্বাস্তু? ‘এনআরসি’ হবে, যত পুরনো ডকুমেন্ট লাগবে, আর একাত্তরের আগের ডকুমেন্ট না দেখাতে পারলে পুলিশ ধরে নিয়ে যাবে — এইরকম শুনছেন এদিক ওদিক, নেতাদের বক্তৃতায়? আরও শুনেছেন, শুধু যারা হিন্দু তারা ছাড় পাবে মোদি-অমিতশাহের আনা নতুন ‘নাগরিকত্ব সংশোধন’ (ক্যা) আইনে? […]

একটি সমতার ইস্তাহারের খসড়া ও তার ওপর দশটি প্রশ্নোত্তর

একটি সমতার ইস্তাহারের খসড়া প্রকাশিত হয়েছিল কয়েক সপ্তাহ আগে। তা পড়ে নানা প্রশ্ন করেন অনেকে। তার মধ্যে থেকে কিছু প্রশ্নের উত্তর দেবার চেষ্টা করা হল। এই প্রশ্নোত্তরের মধ্যে দিয়ে সমতার ইস্তাহারের ধারনা আমাদের কাছেও স্পষ্ট হচ্ছে একটু একটু। একইসাথে পাঠকদের কাছেও স্পষ্ট হচ্ছে আশা করা যায়। প্রশ্নগুলির উত্তর দিয়ে দেবার মানে এই নয় যে প্রশ্নগুলি গুরুত্বপূর্ণ নয় বা প্রশ্নগুলি সমাধিত হয়ে গেল। এটা তো কোনো তর্কযুদ্ধ নয় এবং জেতা-হারারও ব্যাপার নয়। উত্তরগুলির মতো, প্রশ্নগুলিও গুরুত্বপূর্ণ এবং সুদূরপ্রসারী। আরো প্রশ্ন ও উত্তর চলতে চলতে তৈরি হবে আশা করা যায়।

বিজেপির কারণ (৩) : স্বজাতের বাসনা

আত্মপরিচয়ের রাজনীতি বিদ্বেষের প্রেক্ষাপটে নিঃসন্দেহে কানাগলি, কিন্তু আত্মপরিচয়ের রাজনীতি অপরের প্রতি আত্মীয়তা ও সহিষ্ণুতার প্রেক্ষাপটেও হতে পারে। এই প্রেক্ষাপট নির্মাণে সবচেয়ে সাহায্য করতে পারে ইকুইটি বা সার্বিক সমতার ধারনা।

বিজেপির কারণ (২) : হিন্দুর উদ্বেগ

জাগতিক দৃষ্টিতে দেখলে মুসলমানের ব্যাপারে হিন্দুর উদ্বিগ্ন হবার কিছু নেই। মুসলমানরা হিন্দুর চেয়ে আমাদের দেশে সব দিক দিয়ে অনেক পিছিয়ে — শিক্ষা, স্বাস্থ্য, রোজগার, জমিজিরেত, ব্যবসা। বরং তার হাত ধরে এগিয়ে নেবার আছে, সমতার জন্য। সামগ্রিক সমৃদ্ধির জন্য।

বিজেপির কারণ (১) : — পুরুষের প্রতিক্রিয়া

প্রতিনিধির বদলে শাসক নির্বাচন, সমীকরণ, সরকারের ভূমিকা, প্রশাসন, প্রচার, টাকা — এসবের কারণেই একটা লোকের একটা ভোটের যদি আশি শতাংশ বানানো হয়, তবুও কুড়ি শতাংশ তার সামাজিক টানাপোড়েনের গঠন।